বৃহস্পতিবার   ২৪ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৮ ১৪২৬   ২৪ সফর ১৪৪১

১১৮

সন্তান পড়া মনে রাখতে পারছে না?

প্রকাশিত: ১২ মার্চ ২০১৯  

সন্তান পড়া মনে না রাখতে পারলে কি অমনযোগিতাই এর জন্য শুধু দায়ী? না কি মনে রাখতে না পারাটাও একটা সমস্যার কারণে হচ্ছে? আপনিও হয়তো সারা দিনের শেষে সন্তানের পড়াশোনার বিষয় নিয়ে ভাবতে বসলেই অমনযোগিতার কথাই হয়তো আপনাকে চিন্তায় ফেলছে।

তবে শাসন বা সন্তানকে তিরস্কার কিন্তু এই অমনোযোগের অসুখকে কমাতে পারবে না। তার জন্য দরকার কিছু জরুরি কৌশল। দেখে নিন কোন কোন উপায়ে এই অমনোযাগিতাকে কমানো যায় সহজেই।

সন্তান কিছুটা বড় না হওয়া পর্যন্ত পড়তে বসলে তার সামনে থাকুন। এমন একটা সময় তার পড়ার জন্য ঠিক করুন, যখন আপনি বাড়িতে থাকবেন। আপনি সামনে থাকলে সন্তানের ভুলে যাওয়ার কারণ, কোথায় সমস্যা তা সহজে বুঝতে পারবেন।

শিশুর ক্ষেত্রে ছবির সাহায্য নিন। পড়ার বিষয়টা ছবি এঁকে, প্রয়োজনে আলাদা আলাদা রং ব্যবহার করে বোঝান। পড়াশোনার ক্ষেত্রে ভিজ্যুয়াল কোনো দৃশ্য খুব ভাল কাজ করে।

তাই ইতিহাস বা নাটক বোঝালে অবশ্যই সেই ঘটনার উপর নির্মাণ করা নাটক বা সিনেমার দৃশ্যও দেখাতে পারেন। তবে সাহিত্য নির্ভর হলে তবেই তা দেখাবেন। বইয়ের গল্প পরিবর্তন করা নাটক-সিনেমা দেখাবেন না।

সন্তান যা পড়ছে সেটা আপনাকে আবার বোঝাতে বলুন। এটা করতে পারলেই পড়া বুঝে মনে রাখা সহজ হবে। পড়া ভাল মত বুঝে লিখে ফেলতে বলুন। লিখে ফেললে সহজেই মনে রাখতে পারবে।

ইতিহাস বা সাহিত্যকে গল্পের ছলে বুঝিয়ে বলুন সন্তানকে। মনে রাখা যায় এমন কিছু কৌশল আছে যেমন, কোনো কোনো সাল-তারিখ বা বানান, রসায়নের বিশ্লেষণ মনে রাখার সহজ কিছু ফর্মুলা আছে। নেট থেকেও সে সব জানা যায়। নিজেই তা এক জায়গায় লিখে সন্তানকে বুঝিয়ে দিন।

শিশুর ইচ্ছা না করলে তাকে একটানা পড়াবেন না। সন্তানের তাতে বেশি ভুলে যাবে বরং পড়ার মাঝে মাঝে ওর পছন্দের কিছু করতে দিন। এতে আনন্দ পাবে ও পড়াও মনে রাখতে পারবে।

পড়া পারলে তাকে বিভিন্ন খেলনা বা কাপড় কিনে দেয়ার লোভ দেবেন না। এতে মনঃসংযোগ তো বাড়েই না বরং সে যাই করে তা পুরস্কারের লোভে করে।

পড়াশোনাকে খেলার ছলে সহজ করে তোলার পরেও যদি তার মনঃসংযোগ না বাড়ে তবে মনোবিদের সাহায্য নিন। এতে সমস্যার সমাধান হবে অনেকটাই।

দৈনিক যশোর
দৈনিক যশোর