সোমবার   ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯   ভাদ্র ৩১ ১৪২৬   ১৬ মুহররম ১৪৪১

১৫৩

ভালো থাকার দশ উপায়

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৫ মার্চ ২০১৯  

ভালো থাকতে কে না চায়! কিন্তু জীবন সংগ্রামময়। বেঁচে থাকার জন্য আজীবন সকলকে কঠিন সংগ্রাম করতে হয়। সবসময় নানা রকম সংগ্রামের মধ্য দিয়ে যাওয়ার ফলে কখনো কখনো জীবনে খুবই খুব হতাশা কাজ করে। হতাশার কারণে শরীর ক্লান্ত লাগে ও মন ভালো থাকেনা। নিজে ভালো না থাকলে অন্যকে ভালো রাখা যাবেনা। নিজেকে ভালো রাখার জন্য কয়েকটি সহজ সরল টিপস সম্পর্কে জেনে নিন-

১. প্রতিদিন ১০ থেকে ২০ মিনিট সকাল বেলা হাঁটতে হবে। আর যখন হাঁটবেন তখন হাসার চেষ্টা করতে হবে। সকাল বেলা হাটার সময় হাসিখুশি থাকলে সারাদিনে আর কোন ভীষন্নতা আসবেনা। 
 
২. প্রতিদিন অন্তত ১০ মিনিট নিরব থাকার চেষ্টা করতে হবে। সেসময় চুপ থেকে নিজেকে ভাবতে হবে বা মনকে শান্ত রাখতে হবে। সেটা হতে পারে, সকাল বেলা 
ঘুম থেকে উঠে বা রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে। এক কথায়, ১০ মিনিট মৌনতা বজায় রাখতে হবে। 

৩. প্রতিদিন সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থনা করতে হবে। যেন দিনটি ভালো যায়, কোন রকম বাঁধা জীবনে না আসে। 

৪. প্রক্রিয়াজাতকরণ খাবারগুলো কম পরিমাণে খেতে হবে। কারণ শরীর ঠিক রাখতে হবে। 

৫. শরীর সুস্থ রাখার জন্য সকাল শুরু করতে হবে গ্রিন টি দিয়ে। আবার অতিরিক্ত মাত্রায় গ্রিন খাওয়া যাবেনা। সারা দিনে এক থেকে দুই কাপ খেতে পারেন। সেই সঙ্গে পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি খেতে হবে। যাতে শরীরের কিডনি ফাংশন ও হজম ক্ষমতা ঠিক থাকে। এছাড়াও সকালের নাস্তায় কয়েকটি কাঠ বাদাম রাখতে হবে। আর শরীর ঠিক রাখতে সবজিগুলোর মধ্যে খাবারের তালিকায় ব্রকলি রাখতে হবে। 
 
৬. প্রতিদিনের কাজের চাপে লোকের সঙ্গে কথা বলা হয়না। আমরা তো প্রতিবেশীদের প্রায় ভুলতেই বসেছি। এটা কিন্তু স্বাস্থ্যগত ঠিক থেকে খুবই খারাপ লক্ষণ। প্রতিদিন কমপক্ষে তিনটি মানুষের সঙ্গে হেঁসে কথা বলতে হবে। 

৭. বেশিরভাগ মানুষই গুজবে বেশি কান দিয়ে থাকেন। যেমন কাকে কান নিয়ে গেছে শুনলে আমরা কাকের পিছনে ছুটতে শুরু করি। নিজের কানে হাত দিয়ে দেখার সময় হয় না যে, সত্যিই কান আছে কি-না এসব গুজব শুনে মন ভারাক্রান্ত হয়ে থাকে। এছাড়া অতীতের কোনো স্মৃতি মনে পড়ে মন খারাপ হয়ে যায়। এ ধরণের নানা রকম নেতিবাচক চিন্তা-ভাবনা করে আমরা দিনটাকে খারাপ করি। এটা কখনোই করা যাবেনা। সবসময় নিজের উপর বিশ্বাস রাখতে হবে। কোনো রকম নেতিবাচক চিন্তাভাবনা করা যাবেনা। যত নেতিবাচক চিন্তাভাবনা করবেন ততই মন খারাপ হবে। তাই নেতিবাচক চিন্তা ভাবনা না করে সবসময় ইতিবাচক চিন্তা করে মন ভালো রাখতে হবে।

৮. হতাশা, দুঃখ ও কষ্ট মানুষের নিত্য সঙ্গী। এসব হতাশা, দুঃখ ও কষ্ট মন থেকে দূর করতে হবে। আর কখনো অতীতকে আঁকড়ে বেঁচে থাকার চেষ্টা করবেননা। তবে হতাশা, দুঃখ আরো বাড়তে থাকবে। 

৯. কাউকে ঘৃণার চোখে দেখা যাবেনা। তবে এমন ক্ষমা করা যাবেনা যাতে নিজেকে ছোট হতে হয়। ক্ষমা করলে জীবনে অনেক কিছু পাওয়া যায়। আর ঘৃণা করলে জীবনে অনেক কিছু হারাতে হয়। তাই সবাইকে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখে জীবন সুন্দর করতে পারেন। 

১০. স্বাস্থ্য ভালো রাখার জন্য অবশ্যই সকালের নাস্তা করতে হবে। আর নিজেকে কখনো কারো সঙ্গে তুলনা করা যাবেনা। সবসময় নিজেকে অন্যের সঙ্গে মানিয়ে নেয়ার চেষ্টা করতে হবে। তবেই জীবন সুন্দর হবে ও অনেক ভালো থাকতে পারবেন।

দৈনিক যশোর
দৈনিক যশোর