বুধবার   ২৩ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৮ ১৪২৬   ২৩ সফর ১৪৪১

৯৪

বিএনসিসির রাষ্ট্রীয় সফরে যবিপ্রবির রায়হান

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯  

প্রথমবারের মত বিএনসিসি থেকে রাষ্ট্রীয় সফরে অংশ নিয়েছেন যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) ক্রীড়া শিক্ষা বিজ্ঞান বিভাগের ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী নূরুল মোস্তফা চৌধুরী রায়হান। 

নেপালের আর্মি দিবস উপলক্ষে নেপাল সরকারের আমন্ত্রণে বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোর ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সার্বিক সহযোগিতায় নেপালে পৌঁছেছে বিএনসিসির ১২ সদস্যের একটি চৌকস দল। এই দলে প্রথমবারের মতো জায়গা করে নিয়েছেন তিনি। এবং এই দলে রায়হানই একমাত্র এয়ারফোর্সের ক্যাডেট। তাঁর সাথে আছেন উইংয়ের ১০জন ক্যাডেট এবং একজন নৌবাহিনী সদস্য ও রয়েছেন। দলটির নেতৃত্ব দিবেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা মেজর কায়সার।

নূরুল মোস্তফা চৌধুরী রায়হান ১৯৯৫ সালে চট্টগ্রাম জেলার বাশঁখালী উপজেলার জলদি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। পরবর্তীতে বাবার চাকরির সুবাদে ২০১০ সালে গাজীপুর ক্যান্টনমেন্টের বাংলাদেশ সমরাস্ত্র কারখানা উচ্চ বিদ্যালয় হতে এস.এস.সি এবং ২০১২ সালে গাজীপুর ক্যান্টনমেন্ট কলেজ হতে জিপিএ-৫ সহ কৃতিত্বের সঙ্গে এইচএসসি পাশ করেন। পরে ২০১৪ সালে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্য বিজ্ঞান অনুষদের অন্তর্ভুক্ত শারীরিক শিক্ষা এবং ক্রীড়া বিজ্ঞান বিভাগে ভর্তি হন।

তিনি বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোর-বিএনসিসির (বিমান বাহিনী উইং) ক্যাডেট আন্ডার অফিসার-সিইউও হিসেবে সফলভাবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি বিএনসিসি থেকে ৬টি সামরিক প্রশিক্ষণের পাশাপাশি ফায়ার সার্ভিসের ও প্রশিক্ষণ নিয়েছেন।

পাশাপাশি যশোরের মনিরামপুরে বন্যা দুর্গত এলাকায় ত্রাণ, বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষায় আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ, জঙ্গি বিরোধী র‍্যালি, যবিপ্রবিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পসহ সরকার নির্ধারিত ও নির্দেশিত বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে সফলভাবে নেতৃত্ব দিয়েছেন রায়হান। এছাড়া তিনি সামাজিক সংস্থা তারুণ্যসহ বিশ্ববিদ্যালয় বাস্কেটবল দলেরও কৃতি খেলোয়াড় ছিলেন।

তিনি পূর্বে সাংবাদিকতার সাথেও জড়িত ছিলেন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিক সমিতির সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

যবিপ্রবি বিএনসিসির প্রফেসর আন্ডার অফিসার (পিইউও) অণুজীব বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক প্রভাস চন্দ্র রায় বলেন, 'সে আরও কয়েকবার ভাইভা পর্যন্ত গিয়েছিলো শেষ পর্যন্ত সিলেক্ট হয়নি। কিন্তু এবার সে সফল। একজন ক্যাডেট এর মধ্যে যে গুণাবলি থাকা দরকার তার মধ্যে তা আছে।'

বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রীড়া শিক্ষা বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. নাসিম রেজা বলেন, 'তার এই সাফল্য তার জন্য যেমন সম্মানের তেমনি বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্যও গর্বের। এবং ডিপার্টমেন্টের জন্য তো বটেই। সে যদি সততা, নিয়মানুবর্তিতা এবং আগের মতোই ভদ্রতা অবলম্বন করে চেষ্টা চালিয়ে যায় নিশ্চয়ই সে সাফল্যের শিখরে পৌঁছাবে।'

এদিকে তার এই অর্জনে বিশ্ববিদ্যালয়ের বন্ধু, বিএনসিসি সতীর্থ, সাংবাদিক সহকর্মী সহ সবাই উচ্ছ্বসিত। তার বন্ধু এবং এক সময়ের হলের রুমমেট নাজমুস সাকিব বলেন, 'রায়হান অনেক প্রত্যয়ী, নিষ্ঠাবান এবং চ্যালেঞ্জ নিতে পছন্দ করতো। যার পরিপ্রেক্ষিতেই তার আজকের এই সাফল্য।'

নেপালে বিভিন্ন প্রোগ্রামের পাশাপাশি সেখানকার প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতি, নেপাল ক্যাডেট কোরের মহাপরিচালক, সেনাপ্রধান এবং সার্কের মহাসচিবের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবে দলটি। পাশাপাশি কেবল কার রাইডিং, হিল ক্লাইম্বিং ও রাফটিং সহ বিভিন্ন আকর্ষণীয় ইভেন্টে অংশগ্রহণ করবেন। বাংলাদেশের পাশাপাশি ভারত, পাকিস্তান, মালদ্বীপ, শ্রীলংকা, ভুটান এবং সিঙ্গাপুরের ক্যাডেটরাও এটিতে অংশগ্রহণ করেছেন।

উল্লেখ্য, বিএনসিসি থেকে রাষ্ট্রীয় সফরের জন্য মনোনয়ন দেয়ার জন্য বিএনসিসির সামরিক কর্মকর্তারা ক্যাডেটদের চারটি ধাপে পরীক্ষা নেন এবং পরবর্তীতে নির্বাচিত ক্যাডেটদের চূড়ান্ত মনোনয়ন দেন বিএনসিসির মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আব্দুল বাতেন খান।

দৈনিক যশোর
দৈনিক যশোর
এই বিভাগের আরো খবর