বৃহস্পতিবার   ২৪ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৮ ১৪২৬   ২৪ সফর ১৪৪১

৯৪

দেশ ঠিকানা : তাজিকিস্তান

প্রকাশিত: ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯  

প্রিয় পাঠক, নিয়োগ পরীক্ষা কিংবা চাকুরীর ভাইভায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশ সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়। এক্ষেত্রে একটি দেশের আদ্যোপান্ত জানা থাকলে যে কোন প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় আপনার অবস্থান থাকবে অনুকূলে  । তাই আপনাদের প্রস্তুতির সুবিধার্থে আমাদের এই আয়োজন...

মধ্য এশিয়ার স্থলবেষ্টিত একটি দেশ তাজিকিস্তান প্রজাতন্ত্র। এর উত্তরে কিরগিজস্তান, উত্তর-পশ্চিমে উজবেকিস্তান, পূর্বে চীন ও দক্ষিণে আফগানিস্তান। দুশানবে দেশটির বৃহত্তম শহর ও রাজধানী।

তাজিকিস্তান শব্দের অর্থ তাজিকদের আবাসস্থল। তাজিকিস্তানের গোড়াপত্তন হয়েছিল খ্রিষ্টপূর্ব ৪০০০ অব্দে। তখন থেকে ভূখণ্ডটিতে বিভিন্ন সম্রাট রাজত্ব করেন। বিশেষ করে পারস্যের সম্রাটদের অধীনে ছিল দীর্ঘ সময় ধরে।

সপ্তম খ্রিষ্টাব্দে আরবদের মাধ্যমে তাজিকিস্তানে ইসলামের আগমন ঘটে। সম্রাট সামানিড আরবদের হটিয়ে দেন। ১৯২৯ সালে তাজিকিস্তান সোভিয়েত ইউনিয়নের অধীনে চলে যায়। দীর্ঘ সময় পর ১৯৯১ সালে তাজিকিস্তান সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে স্বাধীনতা লাভ করে।

স্বাধীনতার পরপরই দেশটিতে গৃহযুদ্ধ শুরু হয়। ১৯৯৭ সালে একটি শান্তি চুক্তির মাধ্যমে গৃহযুদ্ধের অবসান হলে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ফিরে আসে। 

তাজিকিস্তান আয়তনে মধ্য এশিয়ার ক্ষুদ্রতম দেশ। এ দেশটির ৯০ শতাংশের বেশি এলাকা পর্বতময়। এটি মধ্য এশিয়ার দরিদ্র রাষ্টগুলোর মধ্যে অন্যতম। অর্থনৈতিক খাতের অব্যস্থাপনা ও লাগামহীন দূর্নীতিকে এর জন্য দায়ি করা হয় । অর্থনৈতিক অবস্থা দূর্বল হলেও তাজিকিস্তানের প্রায় শতভাগ মানুষ লিখতে ও পড়তে পারে।

 

 

এক নজরে তাজিকিস্তান : 

পুরো নাম : রিপাবলিক অব তাজিকিস্তান।
স্বাধীনতা ঘোষণা : ৯ সেপ্টেম্বর, ১৯৯১।
রাজধানী : দুশানবে।
রাষ্ট্রধর্ম : ইসলাম।
আয়তন : ১ লাখ ৪৩ হাজার ১০০ বর্গ কিলোমিটার।
জনসংখ্যা : ৮৭ লাখ ৫০ হাজার।
জনসংখ্যার ঘনত্ব : প্রতি বর্গকিলোমিটারে ৪৮.৬ জন।
দাপ্তরিক ভাষা : তাজিক।
প্রেসিডেন্ট : ইমোমালি রহমান।
আইন সভা : সুপ্রিম আ্যাসেম্বলী।
উচ্চকক্ষ : ন্যাশনাল আ্যাসেম্বলী।
নিম্নকক্ষ : আ্যাসেম্বলী অব রিপ্রেজেন্টেটিভস।
মুদ্রা : সুমোনি।
মাথাপিছু আয় : তিন হাজার ১৪৬ ডলার।
জাতিসংঘে যোগদান : ২ মার্চ ১৯৯২। 

দৈনিক যশোর
দৈনিক যশোর
এই বিভাগের আরো খবর