বুধবার   ২২ মে ২০১৯   জ্যৈষ্ঠ ৭ ১৪২৬   ১৭ রমজান ১৪৪০

৪২

গুণে অনন্য `টক দই`

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৫ মার্চ ২০১৯  

টক দই দিয়ে রান্নার স্বাদ বাড়ানোর পাশাপাশি রূপচর্চাও করা হয়ে থাকে। নানা গুণে পূর্ণ টক দই ত্বক ও চুলের জন্য অনেক উপকারি। ত্বকের যত্নে বিভিন্ন উপায়ে টক দই ব্যবহার করা যায়। তবে রূপচর্চার বিভিন্ন ধাপে সঠিকভাবে টক দই ব্যবহারে ভালো ফলাফল পাওয়া যায়। চলুন তবে দেখে নেয়া যাক টক দইয়ের বিভিন্ন উপকারিতা ও যথাযথ ব্যবহার- 

১. টক দই ত্বকের রং উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে। কমলার খোসা-গুঁড়ো মিশিয়ে টক দইয়ের সঙ্গে ব্যবহার করলে বাড়তি উপকার পাওয়া যাবে। এই মিশ্রণ ত্বকের পোড়াভাব দূর করে ত্বক উজ্জ্বল সাহায্য করে। নিয়মিত ব্যবহারে ভালো কাজ হবে।

২. টক দইয়ের সঙ্গে পরিমাণ মতো লেবুর রস ও লবণ মিশিয়ে মাথার ত্বকে লাগিয়ে রাখতে হবে। চুলে নয়। চাইলে মিশ্রণের সঙ্গে খানিকটা জলপাইয়ের তেল মিশিয়ে নেয়া যেতে পারে। এতে শুষ্ক মাথার ত্বক থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।

৩. শীত ছাড়া গরমেও সূর্যের অতিরিক্ত তাপ আর্দ্রতা শুষে নেয় ফলে চামড়া ওঠা, ঠোঁট ফাটা ইত্যাদি সমস্যা দেখা দেয়। এ সমস্যা থেকে মুক্তির জন্য টক দই আর জাফরান এই দুই উপাদান ব্যবহার করুন। পরিমাণ মতো দইয়ের সঙ্গে অল্প পরিমাণে জাফরান মিশিয়ে ঠোঁটে লাগিয়ে রাখুন ২০ মিনিটের জন্য। আপনি জাফরানের পরিবর্তে সরিষার তেলও ব্যবহার করতে পারবেন। দই ও সরিষার তেলের মিশ্রণ দিনে দু'বার ঠোঁটে লাগিয়ে নিলেই উপকার পাওয়া যায়। এই মিশ্রণ ব্যবহারে ঠোঁট কোমল হওয়ার পাশাপাশি রংও পরিবর্তিত হবে। 

৪. ডিমের সাদা অংশ ও ওটমিলের সঙ্গে টক দই মিশিয়ে ঘরোয়া স্ক্রাব তৈরি করা যায়। দইয়ে থাকা ল্যাকটিক অ্যাসিড ত্বকের দাগ দূর করে ত্বক কোমল রাখতে সাহায্য করে। এই স্ক্রাব সপ্তাহে দু’বার ব্যবহারেই পার্থক্য বোঝা যাবে। 

দৈনিক যশোর
দৈনিক যশোর